৯৯৯-এ সাহায্য চাইলে রাতেই হাজির হলেন দাউদকান্দির ইউএন‌ও

0 39

 

||নিজস্ব প্রতিনিধি||

সময় বদলে গেছে। সরকারি সেবা এখন ঘরে ঘরে, প্রতিমুহূর্তে। নাগরিক সেবা জনগণের হাতের নাগালে পৌঁছে দিতে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন ডিজিটাল সেবা মাধ্যম হিসেবে, জনগণের পরমবন্ধু এখন ৯৯৯-এ কল।

মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০) রাত প্রায় ৯টা। দাউদকান্দি উপজেলার সুন্দরপুর ইউনিয়নের আসমা বেগমের করা ৯৯৯ এর ট্রান্সফার কলে কানেকটিভ হন দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. কামরুল ইসলাম খান। আছমার কল পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে জরুরি সেবা দিতে উপজেলার সুন্দলপুর ইউনিয়নের সুন্দলপুর গ্রামে ছুটে যান এই মানবিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। আসমার অভিযোগ ও সাক্ষ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে তাৎক্ষণিকভাবে শাস্তির ব্যবস্থা করেন অপরাধীকে।

সূত্র জানায়, আছমা রাস্তার পাশদিয়ে হাটার সময় এক বখাটে কিশোর চলন্ত সাইকেল নিয়ে আসমার শরীরে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে আহত হয় সে। আছমা তখন সাইকেল আরোহীকে গতিরোধ করার চেষ্টা করে। ঘটনার কিছুক্ষণ পর সংঘবদ্ধভাবে আছমার বাড়িতে হামলা করার জন্য দলবলে নিয়ে যায় ঐ বখাটে কিশোর। নিরাপত্তার জন্য আসমা তখন ৯৯৯ -এ ফোন করে প্রশাসনের সহযোগিতা চান। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে আসমার বাড়িতে ছুটে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম খান।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. কামরুল ইসলাম খান উভয় পক্ষের সাক্ষী প্রমাণের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসান।
ঐ বখাটে কিশোর দোষী প্রমাণিত হলে তাকে দশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এসময় সুন্দলপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুদ আলম ও সাংবাদিক রাশেদুল ইসলাম লিপু মাস্টার উপস্থিত ছিলেন।

তাৎক্ষণিকভাবে সেবা পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান আসমা বেগম।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.