কুমিল্লা উ. আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সা. সম্পাদক পদে আলোচনায় মেজর মোহাম্মদ আলী (অব.)

0 1,410

।। নিজস্ব প্রতিনিধি।।

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক  সম্মেলন ২০১৯-এ সাধারণ সম্পাদক পদে সর্বাধিক আলোচনায় আছেন মেজর মোহাম্মদ আলী (অব.)। দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে। মেজর মোহাম্মদ আলী বর্তমান কমিটির সদস্য এবং দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন।

তরুণ রাজনীতিক হিসেবে দলের জন্য বলিষ্ঠ্য পারফরমেন্সে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দও মোহাম্মদ আলী ব্যাপারে সন্তুষ্ট বলে জানা গেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগ বিটের একজন সিনিয়র সাংবাদিক জানান, মোহাম্মদ আলীর কুমিল্লা উত্তর আওয়ামী লীগে সাধারণ সম্পাদক পদে সম্ভাবনার ব্যাপারে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। উত্তরে তিনি বলেন, মোহাম্মদ আলী ভালো করছে। ওকে এগিয়ে যেতে বলুন।

সূত্র জানায়, কিছু কারণে মোহাম্মদ আলী সিনিয়র নেতাদের পজিটিভ দৃষ্টিতে রয়েছেন। তা হল:
১. ২০১৮ সালে একাদশ সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-১ (দাউদকান্দি-মেঘনা) আসনে নৌকার প্রার্থীর প্রধান সমন্বয়কারী হিসেবে হত্যার হুমকি মাথায় নিয়ে মোহাম্মদ আলী সর্বোচ্চ ভূমিকা রাখেন এবং টানা ততৃতীয়বার এই আসনে নৌকায় জয় অব্যাহত রাখেন।
২. নেতাকর্মীদের মতে, কুমিল্লা উত্তর আওয়ামী লীগ নেতাদের মধ্যে মোহাম্মদ আলী এলাকায় সবচেয়ে বেশি সময় দেন।
৩. সরকারের উন্নয়ন প্রচারে সবচেয়ে বেশি উদ্যোগ মেজর মোহাম্মদ আলীর। দ্বিতীয় কাঁচপুর-মেঘনা ও গোমতী সেতু উদ্বোধনের সময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বাসে-ট্রাকে ফুল বিতরণ করে ব্যাপক প্রশংসা কুড়ান। অতচ এই কর্মসূচিতে কুমিল্লা উত্তরের আর কোনো নেতা অংশ নেননি।
৪. টানা দুইবার জেলায় ও চট্টগ্রাম বিভাগে একবার শ্রেষ্ঠ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হন।
৫. তরুণদেরকে স্বচ্ছ রাজনীতিতে আকৃষ্ট করতে ও তরুণদেরকে উদ্বুদ্ধ করতে মোহাম্মদ আলী খুবই আলোচিত ও পরিচিত নেতা।
৬. বঙ্গবন্ধুর খুনী মোশতাকের সম্পদ বাজেয়াপ্তের আন্দোলনে ধারাবাহিকভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মোহাম্মদ আলী।
৭. দখলে থাকা দাউদকান্দি পুরাতন ফেরিঘাটে অবস্থিত ঐতিহাসিক “বঙ্গবন্ধু মঞ্চ” পুনরুদ্ধার আন্দোলনটিও মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে পরিচালিত হচ্ছে।
৮. উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে চার বছরেরও বেশি সময় দায়িত্বপালন করছেন, কিন্তু মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে দুর্ণীতির কোনো অভিযোগ নেই।

এছাড়াও সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী আলোচনার শীর্ষে আরো যারা রয়েছেন- সভাপতি প্রার্থী বর্তমান কমিটিসহ তিনবারের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম সরকার, সাধারণ সম্পাদক পদের তালিকায় রয়েছে একাধিক নেতার নাম। ইতোমধ্যে প্রার্থী হতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ এম. হুমায়ুন মাহমুদ, সংসদ সদস্য রাজীব ফকরুল,  সংসদ সদস্য সেলিমা আহমদ মেরি, সংরক্ষিত সংসদ সদস্য সিআইপি সেলিনা ইসলাম, হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ. কে. এম. সিদ্দিকুর রহমান আবুল ও জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রোশন আলী মাস্টার।

উল্লেখ্য,আগামী ৯ ডিসেম্বর২০১৯, জেলার চান্দিনা মহিলা কলেজ মাঠে কুমিল্লা জেলা উত্তর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনের উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি হিসেবে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম (এমপি) উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। এবং দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী অ্যাড. আবদুল মতিন খসরু, এমপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ এমপি, পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম বক্তব্য রাখবেন।

এই সম্মেলনে কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ কে পাচ্ছেন? কমিটি কি পুরনো বৃত্তেই বন্দী থাকবে, নাকি নতুন ও ত্যাগীরা শীর্ষ পদে নেতৃত্বে আসবেন এ নিয়েও গুঞ্জন চলছে দলীয় ফোরামে।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.